Bharatbarsha kobita : ভারতবর্ষ – কেদার ভাদুড়ী

+ প্রিয়জনের কাছে শেয়ার করুন +
মা এর বয়স বাহান্ন, বাষট্টি বা ওরকম, ওর বেশি হয়ে  গেলে সত্যি

মা আর মা থাকেন না হয়ে যান মাতা, মাতাজী , নতুবা বঙ্কিমী ভাষায়

মাতাঠাকুরানী ।

পূর্ণগিরি যাচ্ছি। চড়াই উতরিয়ে দেখি এক যুবা, সুঠাম সুন্দর ।

চলেছেন হেঁটে । মাথায় বিশাল এক ঝুড়ি, বেতের । ঝুড়িতে বসে আছেন এক বুড়ি

থুড়থুড়ি, ক্রিপলড, ফুলে ফলে আঁকা মাতাঠাকুরানী ।

প্রায়ই বলছিলেন ; চল বেটা চল সুন্দর ; দিমাক সে পাঁও চালাকে চল ।

দো ভাষীর কাজ করি তো ! মম কে বুঝিয়ে বলছিলাম ব্যাপারটা, তাই ।

পূর্ণগিরি কী? কে? বাহান্ন পীঠের সারবস্তু কোথায়? যমনা বা বেত্রবতীর

তীর থেকে এইসব বুড়ীরা কেনো আসে কেনো যায় ।

পুত্রের অহংকার তো বলিইনি, তবু

সেইদিন রাত্রেই নেহরু লকনৌ এয়ার পোর্ট থেকে দূরভাষ পেলেন;

না আগ্রা নয় আর, বুলন্দদরওয়াজা নয় কিছু,

কনট সার্কাস নয় ভালো, লালকিল্লা, মেরিন ড্রাইভ,

মীনাকষী টেম্পল, তাজ । দেখা হলো, দেখা হলো আজ

হোয়াট ইন্ডিয়া ইজ, হোয়াট ইণ্ডিয়া ওয়াজ । বাই…

পছন্দসই পোস্ট গুলি দেখুন
 
+ প্রিয়জনের কাছে শেয়ার করুন +

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কবিকল্পলতা অনলাইন প্রকাশনীতে কবিতা ও আবৃত্তি প্রকাশের জন্য আজ‌ই যুক্ত হন। (কবিকল্পলতায় প্রকাশিত আবৃত্তি ইউটিউব ভিউজ ও সাবস্ক্রাইবার বাড়াতে সহায়তা করে)